আনারসের অসাধারণ স্বাস্থ্য গুণ জেনে নিন

0
208
আনারস

আনারস এক প্রকারের গুচ্ছফল।পরিচিত একটি ফল আনারস। এটি খেতে যেমন মিষ্টি ও রসাল তেমনি এর পুষ্টিমানও অনেক।জনপ্রিয় ফল আনারস খাওয়া ছাড়াও ফ্রুট সালাদ, জুস ও ডেজার্টে ব্যবহার করা হয়। এতে রয়েছে স্বাস্থ্যকর পুষ্টি উপাদান, যা আমাদের বিভিন্ন প্রকার রোগ থেকে বাঁচায়। খেতে টক বা মিষ্টি ফলটিতে রয়েছে ভিটামিন এ, সি, ফাইবার, ফসফরাস, পটাশিয়াম ও ক্যালসিয়‍াম।

ক্যানসার প্রতিরোধক– এন্টি-অক্সিডেন্টে পরিপূর্ণ আনারাস ফ্রি রেডিক্যালস ধ্বংস করে ও সেল ড্যামেজ রোধ করে। এটি অথেরোস্ক্লেরোসিস, হৃদরোগ, আর্থ্রাইটিস ও বিভিন্ন প্রকার ক্যানসারের বিরুদ্ধে প্রতিরক্ষা তৈরি করে।

ঠাণ্ডা ও কাশি প্রতিরোধ করে-আনারসে ভিটামিন সি’য়ের পরিমাণ বেশি থাকায় এটি ভাইরাসজনিত ঠাণ্ডা ও কাশি প্রতিরোধে সাহায্য করে। আনারসের ব্রোমেলেইন নামক উপাদান ঠাণ্ডা ও কাশি প্রতিকার করতেও সাহায্য করে। যদি ঠাণ্ডা-কাশি বেশি হয় তাহলে ডাক্তারের ওষুধের পাশাপাশি আনারস খেলে দ্রুত উপকার পাওয়া যাবে।

শক্তিশালি হাড় গঠন – হাড় গঠন ও সবল রাখার জন্য আনারসের সুনাম আছে। কারণ হাড় ও কোষের টিস্যু বা কোষকলা গঠন করার জন্য প্রয়োজনীয় ম্যাঙ্গানিজ পাওয়া যায় আনারসে। যদি নিয়মিত এক কাপ পরিমাণ আনারস খাওয়া যায় তবে তা থেকে দেহের প্রয়োজনীয় ম্যাঙ্গানিজের ৭৩ শতাংশ পাওয়া যাবে।

চোখ ও দৃষ্টিশক্তি – বিটা ক্যারোটিন সমৃদ্ধ হওয়ায় আনারস চোখের জন্য ভালো। দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখতে পর্যাপ্ত পরিমাণে আনারস খান।
সুস্থ হৃৎপিণ্ড – এন্টি-অক্সিডেন্টে পরিপূর্ণ বলে আনারস ফ্রি রেডিক্যালসের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে শরীরকে রক্ষা করে ও খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়।
ভালো হজম– এতে রয়েছে ব্রোমেলিন, ভিটামিন সি ও ফাইবার যা হজমক্রিয়ায় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং আনারসের ব্রোমেলেইন হজমে সাহায্যকারী বিভিন্ন রসকে অ্যাসেডিক হতে দেয় না। তাছাড়া আনারসে প্রোটিন পরিপাকের উপাদান থাকে যা দেহের হজম ক্রিয়া বৃদ্ধি করে। তাই বদহজমের সমস্যা থাকলে আনারস খেলে উপকার পাওয়া যায়।

আরও পড়ুনঃ   পুরুষের প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধিসহ আদার অসাধারণ উপকারিতাসমূহ জেনে নিন

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ – যাদের হাইপারটেনশন রয়েছে তারা নিয়মিত আনারস খান। এতে বিদ্যমান পটাশিয়াম ও সোডিয়াম রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে।
ব্রণ ও দাগ – আনারসে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি যা ডার্ক স্পট ও ব্রণ দূর করে একইসঙ্গে ত্বকের টোন উন্নত করে। স্কিন টাইটনিংয়েও আনারসের জুড়ি নেই।

আরও ৪ টি উপকারিতা নিম্নরূপ :-

ভিটামিন ও খনিজ লবণ

আনারসে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ও খনিজ লবণ থাকে। এরমধ্যে রয়েছে ভিটামিন এ, ভিটামিন সি, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস এবং পটাশিয়াম। আনারস একটি আঁশযুক্ত ফল যা থেকে প্রযোজনীয় ফাইবার বা আঁশ ও ক্যালরি পাওয়া যায়। সবচেয়ে বড় কথা হল, আনারসে ফ্যাট ও কোলেস্টেরলের পরিমাণ কম। তাই যারা ওজন কমাতে চান তাদের জন্য আনারস খুবই উপকারী।

দাঁত ও মাড়ির সুস্থতা-

দাঁত দুর্বল হওয়ার অন্যতম কারণ মাড়ির দুর্বলতা। দাঁত ও মাড়ি সুস্থ রাখতে প্রতিদিন আনারস খাওয়া যেতে পারে। কারণ আনারস দাঁত মজবুত করে ও মাড়ি সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

রেটিনার সুস্থতা-

রেটিনা অক্ষিপটের সুস্থতা বজায় রাখতে আনারস সাহায্য করে। ম্যাকুলার ডিজেনারেশন রোগের কারণে প্রথমে দৃষ্টি শক্তি হ্রাস পায় ও পরে রেটিনা বা অক্ষিপটের ক্ষতি হয়। এর ফলে লেখাপড়া, কোন কিছু চিনতে না পারা এবং অন্যান্য দৈনন্দিন কাজ করা কষ্টকর হয়ে দাঁড়ায়। প্রতিদিন আনারস খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুললে এই রোগের সম্ভাবনা ৩৬ শতাংশ কমে আসবে। কারণ এই ফলে আছে বেটা ক্যারটিন যা চোখের জন্য উপকারী।

আর্থ্রাইটিস দূর করে-

আনারস গেঁটেবাত ও এর ব্যাথা দূর করতে সাহায্য করে। পাশাপাশি হাড়ও সুস্থ রাখে।

তথ্যসূত্র: ইন্টারনেট।

সুতরাং আনারস শুধু খেতেই সুস্বাদু নয়, এর রয়েছে বিভিন্ন পুষ্টিগুণ। এক গবেষণায় দেখা গেছে, নিয়মিত আনারসের জুস পান করলে স্থুলতা, ডায়াবেটিক ও হৃদরোগের ঝুঁকি কমে। পাশাপাশি ত্বক ও চুল ভালো রাখতেও এই ফলের জুড়ি নেই। অতিরিক্ত ক্যালোরি নেই এতে। কিউব করে কাটা ১ কাপ আনারসে রয়েছে মাত্র ৮০ ক্যালোরি, ২ গ্রাম ফাইবার ও ১ গ্রাম প্রোটিন।
জেনে নিন আনারস নিয়মিত খাওয়ার আরো কিছু উপকারিতা-

আরও পড়ুনঃ   ওষুধের কাজ করে কলা!

১) শক্তিশালী হাড়ের জন্য
হাড় শক্তিশালী করে সুস্বাদু এই ফলটি। তাজা আনারস নিয়মিত খেলে হাড়ের ক্ষয়রোগ থেকে মুক্তি পাবেন।

২) ত্বকের সুস্থতায়
আনারসে রয়েছে এমন কিছু উপাদান যা ত্বকের সুস্থতার জন্য জরুরি। আনারসে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে যা ত্বককে রাখে নমনীয় ও সুন্দর। এমনকি আনারসের রস সরাসরি ত্বকে লাগালে বলিরেখাসহ মুক্তি পাবেন অনেক ধরনের সমস্যা থেকে।

৩) সুন্দর দাঁতের জন্য
সুস্থ ও ঝকঝকে দাঁত পেতে দৈনন্দিন খাদ্য তালিকায় যোগ করুন আনারস। এতে থাকা ভিটামিন সি ও অ্যাসিডিক উপাদান দাঁতের হলদে দাগ দূর করে ঝকঝকে করে দাঁত। এছাড়া মাড়ির ক্ষয়রোধসহ দাঁতের বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ করে আনারস।

৪) রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে
আনারসে থাকা ভিটামিন সি ও বিভিন্ন পুষ্টিগুণ শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। ঠাণ্ডা লাগা, অ্যালার্জির মতো ছোটখাট অসুখ দূর কর‍তে পারে এই ফল।

৫) হৃদপিণ্ড সুস্থ রাখতে
আনারস হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়। হৃদরোগ থেকে দূরে থাকতে আনারসের পাশাপাশি অন্যান্য ফল ও শাকসবজি খাওয়াও জরুরি।

বিঃ দ্রঃ গুরুত্বপূর্ণ হেলথ নিউজ ,টিপস ,তথ্য এবং মজার মজার রেসিপি নিয়মিত আপনার ফেসবুক টাইমলাইনে পেতে লাইক দিন আমাদের ফ্যান পেজ বিডি হেলথ নিউজ এ ।

LEAVE A REPLY