রূপচর্চায় বিভিন্ন মশালার ব্যবহার জেনে নিন

0
200
রূপচর্চা,মশালা

নিজেকে সুন্দর রাখতে আমরা কিনা করি। আর সৌন্দর্যের ক্ষেত্রে আমরা ত্বক ও চুলের দিকে সবার আগে নজর দেই। ঘরোয়া রূপচর্চায় শাকসবজি, ফলমূল সবই ব্যবহার করি। কিন্তু আপনি জানেন কি  মশলাও রূপচর্চায় দারুণ কার্যকরী।

মশালাতে থাকা প্রাকৃতিক উপাদান অ্যাকনে, ব্রণের মতো ত্বকের একাধিক সমস্যা মোকাবিলা করে ত্বককে করে তোলে উজ্জ্বল। তাহলে জেনে নিন কোন মশলায় কী গুণ আছে-

হলুদ: ত্বকের সৌন্দর্যে হলুদের অবদান অনস্বীকার্য। এতে রয়েছে অ্যান্টি বায়োটিক, অ্যান্টিসেপ্টিক ও অ্যান্টি এজিং উপাদান। ফলে বিভিন্ন ক্রিম তৈরিতে ব্যবহার করা হয় হলুদ। নিয়মিত হলুদ মাখলে ত্বকের দাগছোপ দূর হয়ে ত্বক হয়ে ওঠে ঝলমলে।

দারুচিনি: দারুচিনিতে থাকা অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদান রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়। ব্রণ দূর করতেও সাহায্য করে। দারুচিনি গুঁড়ো করে একটি মিশ্রণ তৈরি করুন। এবার ক্ষতিগ্রস্ত ত্বকের ওপর মিশ্রণটি লাগান। উপকার পাবেন।

ধনিয়া: চোখের যত্নে ধনিয়া ভীষণ উপকারি। রাতভর পানিতে ভিজিয়ে রাখুন এটি। এবার সকালে সেই পানি আঙুলে করে চোখে লাগান। চোখ অনেক সতেজ লাগবে।

কালোজিরা: কালোজিরাও একাধিক গুণে সমৃদ্ধ। নারকেল তেলের সঙ্গে কালোজিরা মেশান। এবার সেটিকে ফুটিয়ে চুলে লাগালে গোড়া শক্ত হবে।

লবঙ্গ: ব্রণ উপশমে খুবই কার্যকরী লবঙ্গ। ব্রণের ওপর লবঙ্গ বেটে লাগালে, ব্রণ কমে যাবে।

মেথি: চুলের উজ্জ্বলতা বজায় রাখতে মেথি ভীষণ উপকারি। হেনার সঙ্গে সমপরিমাণ মেথি মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করুন। এবার মিশ্রণটি ভালো করে চুলে লাগান। খানিকক্ষণ এভাবে রেখে দিন। শুকিয়ে গেলে ভালো করে চুল ধুয়ে ফেলুন। এতে চুল উজ্জ্বল হবে।

জিরা: যাদের মুখে কালো ছোপ দাগ আছে তারা জিরা বাটা ও কেওলিন পাউডার গোলাপজলের সঙ্গে মিশিয়ে মুখে নিয়মিত লাগালে উপকার পাবেন। জিরা ভেজানো পানি তুলায় করে ব্রণের দাগের ওপর লাগালে দাগ ধীরে ধীরে মিশে যাবে।

জায়ফল: জায়ফল গুঁড়া করে দুধের সঙ্গে মিশিয়ে লাগালে মেছতার দাগ হালকা হয়।

আরও পড়ুনঃ   হলুদ যে ২৫ টি রোগের ওষুধ হিসাবে কাজ করে

রসুন: রসুন ও হলুদের মিশ্রণ শুধু ব্রণের ওপর লাগান। দিনে ২ বার। ব্রণ ও ব্রণের ব্যথা কমবে।

পেঁয়াজ: যাদের মাথায় চুল উঠছে বা কিছু জায়গায় টাক পড়ে গেছে, তারা রোজ ছোট পেঁয়াজের রস মাথায় মাখলে বা পেঁয়াজ কেটে ঘষতে হবে।

হরতকি: হরতকি বাটা ত্বকের পিগমেন্টেশনের ওপর লাগান নিয়মিত। ধীরে ধীরে দাগ কমে যাবে। হরতকি আস্তে আস্তে ঘষে চোখের নিচে লাগান। শুকিয়ে গেলে ঠাণ্ডা পানির ঝাপটা দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে চোখের নিচের কালো দাগ দূর হবে।

(বিডিলাইভ২৪)

বিঃ দ্রঃ গুরুত্বপূর্ণ হেলথ নিউজ ,টিপস ,তথ্য এবং মজার মজার রেসিপি নিয়মিত আপনার ফেসবুক টাইমলাইনে পেতে লাইক দিন আমাদের ফ্যান পেজ বিডি হেলথ নিউজ এ ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here