গুড় না চিনি, কোনটি বেশি উপকারী?

0
56
গুড় নাকি চিনি

চিনি না গুড়— কোনটির পুষ্টিগুণ বেশি তা নিয়ে বিতর্ক চিরকালের। ফ্লু সারায় গুড়। কাশি, ঠান্ডা লেগে নাক দিয়ে অনবরত পানি পড়া, মাইগ্রেন, পেট ফাঁপার মতো রোগে উপকারি গুড়। হালকা গরম পানিতে অল্প গুড় মিশিয়ে সেই পানি খেলে উপকার।

সব কিছুতেই চিনি দরকার। যেমন- রান্নায় চিনি, রুটিতেও চিনি? অভ্যাস বদলান। চিনির বদলে সেখানে রাখুন গুড়। রান্নাতেও গুড়, রুটি দিয়েও গুড়। গুড়ের অঢেল গুণ। নাস্তায় চিনি দিয়ে রুটি খাবেন নাকি নলেন গুড়ে তা ঠিক করবেন খাদ্যরসিকই।

চেহারার বিচারে গুড়ের চেয়ে চিনিই বেশি পছন্দ আমাদের তথা গুড়ের চেয়ে চিনিই বেশি সমাদৃত। চিনি তৈরি হয় আখের রস থেকে। আর গুড় হয় সাধারণ আখের রস বা খেজুর রস জ্বাল দিয়ে।

চিনিতে রয়েছে সুক্রোজ নামে শর্করা। আর গুড়ে সুক্রোজের সঙ্গে থাকে ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, লোহা। সেই সঙ্গে সামান্য প্রোটিনও থাকে গুড়ে। বিশেষজ্ঞদের দাবি, উপকারের প্রশ্ন উঠলে এগিয়ে থাকবে গুড়।

চিনির চেয়ে কেন এগিয়ে গুড়?

কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ: গুড় কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করে। শরীরে হজমের এনজাইমের কার্যকারিতা বেড়ে যায় গুড় খেলে। যাদের কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা আছে, তারা লাঞ্চ বা ডিনারের ২০ মিনিট পর অল্প গুড় খেলে উপকার পেতে পারেন।

অ্যানিমিয়া প্রতিরোধ: অ্যানিমিয়া প্রতিরোধেও ভূমিকা রাখে গুড়। এতে থাকা প্রচুর পরিমাণের আয়রন রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়ায়। লিভার পরিষ্কার রাখে। প্রতি ১৫ দিন অন্তর অল্প পরিমাণ গুড় খেলে তা শরীর থেকে ক্ষতিকারক টক্সিন বের করে দেয়।

ফ্লু সারায় গুড়: এমনকি ফ্লু সারাতেও নাকি গুড় বেশ কাজে দেয়, বলছেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, কাশি হলে বা ঠাণ্ডা  লেগে নাক দিয়ে পানি পড়লে বা মাইগ্রেন, পেট ফাঁপার মতো রোগে হলে গুড় খাওয়া যেতে পারে। এক্ষেত্রে  হালকা গরম পানিতে অল্প গুড় মিশিয়ে সেই পানিটুকু খেয়ে নিলে মিলবে উপকার। এছাড়া চায়ে চিনির বদলে গুড় খেলে বেশি উপকার পাওয়া যাবে।

আরও পড়ুনঃ   চিনি খাওয়া কি খারাপ?

প্রি-মেনস্ট্রুয়াল সিনড্রোম কমায়: এসব ছাড়াও গুড় প্রি-মেনস্ট্রুয়াল সিনড্রোম কমায় বলেও মত বিশেষজ্ঞদের। তারা বলছেন, পিরিয়ডসের আগে অল্প পরিমাণ গুড় খেলে এন্ড্রোফাইন বা হ্যাপি হরমোন বেরিয়ে শরীরকে রিল্যাক্স করতে সাহায্য করে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়: এছাড়া রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতেও গুড় বেশ কাজে দেয় বলেও দাবি বিশেষজ্ঞদের। তাদের দাবি অনুযায়ী, গুড়ে থাকে প্রচুর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, জিঙ্ক আর সেলেনিয়ামের মতো মিনারেল, যা শরীরে ফ্রি রেডিক্যাল ড্যামেজ প্রতিরোধ করে। এ ছাড়া বিভিন্ন সংক্রমণ থেকে লড়াই করার ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয় গুড়।

তবে গুড়ে প্রচুর ক্যালরি থাকায় যাদের ডায়াবেটিস আছে বা যারা ওজন কমাতে দিনরাত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন, তাদের গুড় এড়িয়ে চলারই পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের। সূত্র: জিনিউজ

আরও পড়ুনঃ চিনি খাওয়া কি খারাপ?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

ten + eleven =