গুণে ভরা গোলাপ জল

0
122
গোলাপ জল

প্রাচীনকালে মধ্য পারস্যে অনেক ধরনের ফুল চাষ করা হতো সুগন্ধি তৈরির জন্য। গোলাপ ফুলও চাষ হতো তখন। সুগন্ধি তৈরির জন্য গোলাপের তেল সংগ্রহ করা হতো গোলাপের পাপড়ি জ্বাল দিয়ে। উপজাত হিসেবে পাওয়া যেত গোলাপ জল। বর্তমানে যেই পদ্ধতিতে গোলাপ জল উৎপাদিত হয়, সেই পদ্ধতির আবিষ্কারক ছিলেন পারস্যের বৈজ্ঞানিক ইবনে সিনা। সে সময় গোলাপ জল ব্যবহার করা হতো ঔষধ হিসেবে। প্রাচীন মিশরে রাণী ক্লিওপেট্রা সৌন্দর্য চর্চায় গোলাপ জল ব্যবহার করতেন। পরবর্তীতে গোলাপ জলের গুনাগুণ ইউরোপের নজর আকৃষ্ট করে এবং বাণিজ্যিকভাবে এর উৎপাদন শুরু হয়।

প্রাচীনকালে খাওয়ার আগে হাতকে জীবাণুমুক্ত করার জন্য গোলাপ জল ব্যবহার করা হতো। এ ছাড়াও হৃদপিন্ড ভালো রাখার জন্য, অজ্ঞান হওয়ার সমস্যা থেকে মুক্তির জন্য এবং শরীরের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সবল রাখার জন্য গোলাপ জল ব্যবহার করা হতো। বর্তমানে চীন, ভারত এবং মধ্যপ্রাচ্যের নানান খাবারে সুগন্ধি হিসেবে গোলাপ জল ব্যবহার করা হয়। এ ছাড়াও রূপচর্চার অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে গেছে অসাধারণ গুণের এই উপাদান।

গোলাপ জলের গুণ

গোলাপ জলে আছে ফ্ল্যাবনয়েড, অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, ট্যানিন, ভিটামিন এ, ভিটামিন সি, ভিটামিন ডি, ভিটামিন ই এবং ভিটামিন বি৩। জেনে নিন গোলাপ জলের কিছু বিষ্ময়কর গুণ সম্পর্কে।

  • গোলাপ জলের অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি গুণাগুণ ত্বকের লালচে ভাব, র‍্যাস, চুলকানি, ব্রণ এবং একজিমা প্রতিরোধ করে।
  • ত্বকের পিএইচ ব্যালেন্স ঠিক রেখে তৈলাক্ত ভাব কমিয়ে দিতে সহায়তা করে।
  • ত্বকে পানির পরিমাণ ঠিক রেখে সজীবতা ধরে রাখে।
  • অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল গুনাগুণের কারণে ইনফেকশন, কাটাছেড়া এবং দাগ কমাতে সহায়তা করে।
  • ত্বকের কোষগুলোর গঠন এবং পুনর্গঠন করে।
  • ত্বকে বয়সের ছাপ রোধে গোলাপজলের জুড়ি নেই।

ব্যবহারের কিছু পদ্ধতি

  • গোলাপ জলের ঘ্রাণ মানসিক প্রশান্তিদায়ক। বালিশের কভারে সামান্য গোলাপ জল স্প্রে করে ঘুমালে ঘুম ভালো হয় এবং সকালবেলা ঘুম থেকে ওঠার পরে বেশ তাজা লাগে।
  • গোলাপ জলের সাথে কয়েক ফোটা নারিকেল তেল তুলায় লাগিয়ে মেকআপ তুলে ফেলা যায় সহজেই।
  • সমপরিমাণ গোলাপ জল এবং গ্লিসারিন মিশিয়ে তুলার সাহায্যে চুলের গোড়ায় লাগিয়ে ৩০ মিনিট পর শ্যাম্পু করে ফেললে চুলের রুক্ষতা দূর হয়।
  • ১ টেবিল চামচ লেবুর রসের সাথে ১ টেবিল চামচ গোলাপ জল মিশিয়ে ত্বকে লাগিয়ে ৩০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহারে ব্রণের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।
  • দুই টেবিল চামচ বেসনের সাথে গোলাপজল এবং লেবুর রস মিশিয়ে ত্বকে লাগিয়ে ১৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহারে রোদে পোড়া ভাব কমে যাবে এবং ত্বক উজ্জ্বল হবে।
আরও পড়ুনঃ   ‘মনের ডাক্তার’ তেজপাতা

আজকাল দোকানে যেসব গোলাপ জল পাওয়া যায় তার অধিকাংশই ক্ষতিকর রাসায়নিক পদার্থ এবং রং মেশানো থাকে। উপকারিতা পেতে হলে চাই খাঁটি গোলাপজল। তাই কেনার সময় খাঁটি গোলাপ জল কিনা, তা নিশ্চিত হতে হবে।

এনডি টিভি।

নুসরাত শারমিন

Read also গোলাপ জলের ৮ উপকার

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

4 × 5 =