তেলে তাজা চুল

0
311
তেলের গুণ

বাগানের ফুল তুলে চুল না বাঁধা হোক, চুলের যত্নে তেলের ভূমিকা আজও আছে৷ কত রকম শ্যাম্পু, কন্ডিশনার পাওয়া যাচ্ছে; তবু চুলের যত্নে তেলের ওপরই ভরসা অনেকের৷ নারকেল, আমলা, সরিষা—এত রকম তেলের মধ্যে কোনটারর কী গুণ, তা জেনে নিন৷ এসব জানিয়েছেন নভীন’স অ্যারোমা স্কিন ট্রিটমেন্ট সেন্টারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমিনা হক৷

১০০% ভার্জিন নারিকেল তেল ঘরেই তৈরি করার সবচাইতে সহজ রেসিপি!

চুলের যত্নে এই তেল সবচেয়ে পরিচিত ও বহুল ব্যবহৃত৷ নিষ্প্রাণ চুলে সজীবতা ফিরিয়ে আনতে এর কোনো জুড়ি নেই৷ এটি চুলের রুক্ষতা ও আগা ফেটে যাওয়া রোধ করে৷ চাইলে ঘরে বসেই আপনি খাঁটি নারকেল তেল বানিয়ে ফেলতে পারেন৷ ঝুনা নারকেলের শাঁস ভালোমতো বেটে ২০ থেকে ২৫ মিনিট চুলায় জ্বাল দিয়ে নিন৷ এ থেকেই তেল বেরিয়ে আসবে৷ এই তেল ঠান্ডা করে চুলের গোড়াসহ পুরো চুলে লাগিয়ে নিন৷ এটি একবার বানিয়ে বোতলে সংরক্ষণ করে রাখলে অনেক দিন ব্যবহার করতে পারবেন৷

সরিষার তেল
রোদে পুড়ে চুল লালচে হয়ে গেলে, চুলের ঘনত্ব কমে গেলে এই তেল লাগালে উপকার পাবেন৷

তিল ও নিমের তেল
চুলের গোড়ায় নিয়মিত তিল অথবা নিমের তেল ব্যবহার করলে খুশকির সমস্যা থেকে রেহাই পাবেন৷

লবঙ্গর তেল
অনেক সময় মাথার ত্বকে ঘামাচির মতো ছোট ছোট দানা দেখা দেয়৷ বিশেষ করে গরমের দিনে যাঁরা বেশি ঘামেন এবং সব সময় কাপড় দিয়ে যাঁদের চুল ঢাকা থাকে, তাঁরা এ ধরনের সমস্যায় ভুগতে পারেন৷ চুলের গোড়ায় লবঙ্গের তেল নিয়মিত মালিশ করলে এই সমস্যা দূর হয়ে যাবে৷

আমলার তেল
এই তেল চুলকে কালো করে এবং অকালে চুল পেকে যাওয়ার সমস্যা থেকে রক্ষা করে৷

তিসির তেল
এটি চুলকে কালো ও মসৃণ করতে সাহায্য করে৷

রোজমেরি তেল
এই তেল মাথার ত্বকের জন্য বেশ উপকারী৷

আরও পড়ুনঃ   চুল পড়া রোধে কিছু ‍কার্যকরী টিপস জেনে নিন

ইভনিং প্রিমরোজ তেল
এক টেবিল চামচ জলপাই তেলের সঙ্গে চার ফোঁটা ইভনিং প্রিমরোজ তেল মিশিয়ে চুলে মালিশ করলে চুল পড়া কমে৷ এটি চুলের দ্রুত বৃদ্ধিতেও সাহায্য করে৷

জোজোবার তেল
জোজোবার তেলের সঙ্গে ক্যাস্টর তেল মিশিয়ে নিয়মিত চুলে ব্যবহার করলে তা নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে৷
এ ছাড়া এক টেবিল চামচ জোজোবার তেলের সঙ্গে চার ফোঁটা চা-গাছের তেল, চার ফোঁটা গোলাপের তেল এবং চার ফোঁটা ইউক্যালিপটাসের তেল মিশিয়ে চুলে লাগালে চুল পড়া কমে এবং চুল মজবুত হয়৷

জেনে নিন
চুলের যত্নে আরও কিছু সুগন্ধি তেল ব্যবহৃত হয়৷ যেমন: ল্যাভেন্ডার তেল, চন্দন কাঠের তেল ও বেলি ফুলের তেল৷ বড় ওষুধের দোকান ও সুপারশপগুলোয় নানা রকম তেল কিনতে পাবেন৷ এ ছাড়া অ্যারোমাথেরাপি করানো হয়—এমন বিউটি পারলাগুলোতেও সুগন্ধি তেল পাওয়া যেতে পারে৷ এই তেল চুলকে সুন্দর ও ঝলমলে তো করবেই, তার সঙ্গে দূর করবে ক্লান্তি এবং মনে নিয়ে আসবে প্রশান্তি৷
বেলি ফুলের তেল ঘরেই তৈরি করতে পারবেন৷ এক কেজি বেলি ফুল সারা রাত পানিয়ে ভিজিয়ে রাখার পর সকালে সেই পানির ওপর যে তেল ভেসে উঠবে, তা চামচ দিয়ে তুলে চুলে মালিশ করে নেওয়া যাবে৷
চুলের গোড়ায় তুলার সাহায্যে তেল মালিশ করতে পারেন৷ এরপর সারা চুলে তেল মেখে ৩০ মিনিট রাখলেই যথেষ্ট৷ সব তেলই গরম করে লাগাতে হবে তা নয়; বরং অনেক সময় তেল গরম করলে তার পুষ্টিগুণ কিছুটা কমে যেতে পারে৷ তবে তেল লাগানোর পর চুল শ্যাম্পু করার আগে মোটা তোয়ালে গরম পানিতে ভিজিয়ে তা নিংড়ে মাথায় পাঁচ থেকে সাত মিনিট পেঁচিয়ে রাখতে পারেন৷ এতে লোমকূপগুলো খুলে ভেতরের ময়লা বেরিয়ে আসবে এবং তেলের পুষ্টিগুণ সহজেই ভেতরে ঢুকতে পারবে৷

-নাদিয়া মাহমুদ

 

বাড়িতে যেভাবে চুলের তেল তৈরি করবেন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

9 − eight =