পজেটিভ ও নেগেটিভ মানুষ চিনবেন যেভাবে?

0
233
পজেটিভ, নেগেটিভ

আমাদের চারপাশেই রয়েছেন এই মানুষরা। কেউ সফল, কেউ ব্যর্থ। কেই আপনাকে সব কাজেই উদ্বুদ্ধ করেন, কেউ সব বিষয়েই আপনার খুঁত ধরেন। কারও সঙ্গে থাকলে আপনার ইতিবাচক অনুভূতি হয়, কারও সংস্পর্শ আপনাকেও নেতিবাচক করে তোলে।

জীবনে এগিয়ে চলতে গেলে পজিটিভ মানুষদের সঙ্গ যেমন প্রয়োজন, তেমনই প্রয়োজন নেগেটিভ মানুষদের সঙ্গ ত্যাগ করা। কিছু বিষয় লক্ষ্য রাখলে বুঝতে পারবেন এই ইতিবাচক ও নেতিবাচক মানসিকতার পার্থক্য।

ব্যর্থতা: পজিটিভ মানুষরা কখনই ব্যর্থতায় ভেঙে পড়েন না। তারা জানেন সাফল্যের সিঁড়ির চড়তে গেলে ব্যর্থতা আসবেই। ব্যর্থতাকে তারা জীবনে শিক্ষা হিসেবে দেখেন। নেগেটিভ মানুষরা ব্যর্থতাকে জীবনে চিরস্থায়ী ও জীবনের শেষ মনে করেন। ব্যর্থতায় ভেঙে পড়েন।

শর্টকাট: পজিটিভ মানুষরা জানেন সাফল্যের কোনও শর্টকাট নেই। লক্ষ্যে পৌঁছতে গেলে পরিশ্রম, অধ্যাবসায় এবং ধৈর্যই মূল কথা। তারা কখনই শর্টকাট খোঁজেন না। নেগেটিভ মানুষরা সাফল্যের শর্টকাট খোঁজেন সব সময়। তাই তাদের জীবনে সাফল্য এলেও তা দীর্ঘস্থায়ী হয় না।

প্রশংসা: পজিটিভ মানুষরা নিজেদের লক্ষ্যে স্থির। তারা কখনই মনে করেন সচেষ্ট থাকলে তাদের উন্নতির পথে কিছুই বাধা হবে না। তাই অন্যদের উন্নতিতেও তারা প্রশংসা করেন, উদ্বুদ্ধ করেন, অন্যদের সাহায্য করেন। নেগেটিভ মানুষরা সকলকেই হিংসা করেন, মনে করেন সকলেই তাদের উন্নতির পথে বাধা।

পরিবর্তন: পজিটিভ মানুষরা জানেন জীবনে একটি বিষয়ই স্থিতিশীল। তা হল পরিবর্তন। তাই যে কোনও পরিবর্তনই তারা সহজ ভাবে গ্রহণ করেন। নেগেটিভ মানুষরা কোনও পরিবর্তনকে গ্রহণ করতে, পরিবর্তনের সঙ্গে মানিয়ে নিতেই স্বচ্ছন্দ নন। তারা মনে করেন জীবনে সব কিছুই নির্ধারিত এবং জীবন এক ভাবেই চলবে।

শেখা: পজিটিভ বা ইতিবাচক মানসিকতার মানুষরা কখনই নতুন কিছু শিখতে ভয় পান না। তাঁরা জানেন জীবনে সব সময়ই নতুন কিছু শিখতে হবে। নেগেটিভ মানুষরা মনে্ করেন তারা সব জানেন, জীবনে বিশেষ কিছু শেখার নেই আর।

আরও পড়ুনঃ   ত্বকের যত্ন ছাড়াও ভ্যাসলিনের ২২টি ভিন্ন ব্যবহার জেনে নিন

আরাফাত হোসেন রবিন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

3 × two =