পাইলসের যন্ত্রণা কমানোর ঘরোয়া উপায়

0
পাইলসের যন্ত্রণা কমানোর উপায়

বর্তমানে পাইলস বা হেমোরয়েড পরিচিত একটি রোগ। মলদ্বার ফুলে যাওয়া, মলদ্বারে যন্ত্রণা, রক্ত পড়া, জ্বালাপোড়া ইত্যাদি পাইলসের সাধারণ লক্ষণ। মূলত কম ফাইবারযুক্ত খাবার, স্থূলতা, কোষ্ঠকাঠিন্য,  শারীরিক কার্যকলাপ, দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে অথবা বসে থাকা ইত্যাদি কারণে পাইলস দেখা দিতে পারে।

এই রোগে হলে সাধারণত ওষুধ বা অপারেশন মাধ্যমে চিকিৎসা করা হয়। তবে পাইলস থেকে রক্ষা পেতে সবুজ শাকসবজি বেশি করে খাওয়া উচিত। আঁশজাতীয় খাবার বেশি খাওয়া উচিত। বেশি বেশি পানি খেতে হবে। মলত্যাগের অভ্যাস যেন প্রতিদিন থাকে। কোনো ধরনের অনিয়ম দেখা দিলে সাথে সাথে  চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে। তবে ঘরোয়া উপায়েও অনেক সময় এ সমস্যা থেকে কিছুটা হলেও মুক্তি পাওয়া যেতে পারে। যেমন-

– অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার
একটি তুলোর বলে অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার লাগিয়ে ব্যথার স্থানে লাগান। শুরুতে এটি জ্বালাপোড়া সৃষ্টি করবে, কিন্তু ১০ মিনিট অপেক্ষা করার পরই জ্বালাপোড়া কমে যাবে। এটি দিনে কয়েকবার করুন।

অভ্যন্তরীণ হেমোরয়েডের জন্য এক চা চামচ অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার এক গ্লাস পানিতে মিশিয়ে নিন। এটি দিনে দুইবার পান করুন। এরসঙ্গে এক চা চামচ মধু মিশিয়ে নিতে পারেন।

– অ্যালোভেরা জেল ব্যবহার
অ্যালোভেরা জেল আক্রান্ত স্থানে ম্যাসাজ করে লাগান। এটি জ্বালাপোড়া দূর করে ব্যথা কমিয়ে দেবে। যা সাময়িক কষ্ট লাগব করতে বেশ সহায়ক।

আভ্যন্তরীণ হেমোরয়েডের ক্ষেত্রে অ্যালোভেরা পাতার কাঁটার অংশ কেটে জেল অংশটুকু একটি প্ল্যাস্টিকের প্যাকেটে ভরে ফ্রিজে রেখে দিন। এবার এই ঠাণ্টা অ্যালোভেরা জেলের টুকরো ক্ষত স্থানে লাগিয়ে রাখুন। এটি ১০ মিনিটের মধ্যে জ্বালাপোড়া, ব্যথা, চুলকানি দূর করে দেবে।

– বরফ ব্যবহার করুন
একটি কাপড়ে কয়েক টুকরো বরফ পেঁচিয়ে ব্যথার স্থানে ১০ মিনিট রাখুন। এটি দিনে কয়েকবার করুন। ব্যথা কমে যাবে।ঘরোয়া উপায়ে পাইলস নিরাময় করার অন্যতম উপায় হল বরফ। এটি রক্তনালী রক্ত চলাচল সচল রাখে এবং ব্যথা দূর করে দেয়।

আরও পড়ুনঃ   ত্বকের যত্নে বেকিং সোডার ব্যবহার জেনে নিন

– আদা বা লেবুর রস
আদাকুচি, লেবু এবং মধু মিশ্রিত জুস দিনে দুইবার পান করুন। এটি নিয়মিত পান করুন। এটি শরীর হাইড্রেটেড করে পাইলস দূর করে দেয়। এছাড়া দিনে ৮ থেকে ১০ গ্লাস পানি পান করুন।

– অলিভ অয়েল
আপনি যদি প্রতিদিন এক চা চামচ করে অলিভ অয়েল খান। তবে এটি দেহের প্রদাহ হ্রাস করবে এবং মোনোস্যাচুরেটেড চর্বি উন্নত করবে। এছাড়া কিছু বরই পাতা গুঁড়ো করে অলিভ অয়েলের সঙ্গে মিশিয়ে নিন। এটি আক্রান্ত স্থানে ম্যাসাজ করে লাগান। দেখবেন ১০ মিনিটের মধ্যে আপনার ব্যথা কমে গেছে।

– হলুদ কাঁচা
হলুদ পানিতে ফুটিয়ে এই পানি নিয়মিত খান। এতে পাইলসের সমস্যায় অনেকটা উপকার পাওয়া যায়।

যদি কোনো কারণে মলের সাথে রক্ত দেখা যায় বা অন্য কোনো সমস্যা দেখা যায়, তাহলে অবশ্যই একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে। তাহলে প্রাথমিক পর্যায়ে রোগটিকে সহজে নিয়ন্ত্রণ করা যাবে।

লেখাটি ভাললাগলে কিংবা উপকারে আসলে শেয়ার করে অপরকে জানান।

আরও পড়ুন

পাইলস কী? এর লক্ষণ ও চিকিৎসা নিয়ে প্রশ্নোত্তর!

অর্শ বা পাইলসের সমস্যা সমাধানে ঘরোয়া ১০ উপায়!

অর্শ বা পাইলস:কারণ,লক্ষণ,করণীয়,খাদ্যাভ্যাস,চিকিৎসা

বিঃ দ্রঃ গুরুত্বপূর্ণ হেলথ নিউজ ,টিপস ,তথ্য এবং মজার মজার রেসিপি নিয়মিত আপনার ফেসবুক টাইমলাইনে পেতে লাইক দিন আমাদের ফ্যান পেজ বিডি হেলথ নিউজ

-বিডিলাইভ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

twelve + 4 =