বহুগুণের তেজপাতা, জেনে নিন ৭টি ভিন্নধর্মী ব্যবহার

0
তেজপাতা

তেজপাতা এক প্রকারের উদ্ভিদ, যার পাতা মসলা হিসাবে রান্নায় ব্যবহার করা হয়। সাধারণত এর বৈজ্ঞানিক নামঃ Cinnamomum tamala। এই গাছটি মূলত ভারত,নেপাল,ভুটান ও চীন ইত্যাদি দেশে অধিক জন্মে। কেবল কি খাবারের সুগন্ধী বাড়াতেই এর ব্যবহার? নাকি আছে আরও কিছু গুণ? জেনে নিন তেজপাতার এমন ৬টি ব্যবহার যেগুলো আপনি আগে জানতেন না।

তেজপাতা ভিটামিনস ও মিনারেলসে ভরপুর। এতে প্রচুর ম্যাগনেশিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ ও পটাশিয়াম রয়েছে। এ ছাড়া ১০০ গ্রাম তেজপাতা থেকে ২৩ মিলিগ্রাম সোডিয়াম, ৪৩ মিলিগ্রাম আয়রন, ৩.৭ মিলিগ্রাম জিংক, ২.৮ মিলিগ্রাম সিলেনিয়াম পাওয়া যায়।

১) ঘামাচি সারায় তেজপাতা
ঘামাচি দূর করার জন্য তেজপাতা পানিতে ভিজিয়ে রাখুন, তারপর পাটায় মিহি করে বেটে নিন। এই তেজপাতা বাটা শরীরে মেখে ঘণ্টা খানেক রাখুন। তারপর গোসল করে ফেলুন। কোন রকম সাবান ব্যবহার করবেন না। কয়েকবার ব্যবহার করলেই ঘামাচি একদম সেরে যাবে।

২) চোখ ওঠা উপশম করে
তেজপাতা পানিতে ফুটিয়ে নিন। সেই পানি ঠাণ্ডা করে চোখ ধুতে ব্যবহার করুন। চোখ ওঠা দ্রুত আরোগ্য হবে। সকালে ও বিকালে দুই বেলা দেবেন।

৩) ফোঁড়া সারাতেও কার্যকরী
ফোঁড়া সারানোর জন্য তেজপাতা বেটে আক্রান্ত স্থানে ব্যবহার করুন। দ্রুত সেরে যাবে।

৪) দুর্বলতা দূরে করে
শারীরিকভাবে দুর্বল ও রোগা মানুষদের জন্য তেজপাতা দারুণ কার্যকরী। কয়েকটা পাতা থেঁতলে করে ২ কাপ গরম পানিতে ১০-১২ ঘন্টা ভিজিয়ে রাখুন। এরপর ছেঁকে নিয়ে পান করুন। ২ বার করে টানা ২ সপ্তাহ খেলে শরীরে শক্তিও চেহারায় লাবণ্য ফিরে পাবেন।

৫) গলা ভাঙা দ্রুত সারাবে
চটজলদি ভাঙা গলা ঠিক করতেও তেজপাতার বিকল্প নেই। ৭ গ্রাম তেজপাতা ৪ কাপ পানিতে সিদ্ধ করে ২ কাপ করে নিন। এরপর ওই পানি দিয়ে গড়গড়া করুন। গলাভাঙা দ্রুত ঠিক হয়ে যাবে।

৬) মাড়ির ক্ষতের চিকিৎসায় দারুণ উপকারী
মাড়ি দিয়ে রক্ত পড়ে? তেজপাতা শুকিয়ে গুঁড়ো করে নিন। তারপর সেটা দিয়ে নিয়মিত দাঁত মাজুন। মাড়ির ক্ষত সেরে যাবে।

আরও পড়ুনঃ   গাজরের ক্ষীর

৭) অরুচি দূর করে তেজপাতা
তেজপাতা সিদ্ধ পানি দিয়ে নিয়মিত কুলি করুন, অরুচি ও মুখের তেতো ভাব চলে যাবে।

আরো পড়ুন –রূপচর্চায় তেজপাতার বিস্ময়কর ৫টি ব্যবহার!

রূপচর্চায় তেজপাতার অসাধারণ ৬টি গুণ

তেজপাতা ত্বক ও চুলের জন্য কতটা কার্যকর?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

twelve − 2 =