শিশুদের আঙুল চোষা কি ভাল অভ্যাস? গবেষকরা কী বলছেন ?

0
আঙুল চোষা

আপনার শিশু কি একেবারে ছোট থেকেই আঙুল চোষে? বেশ বড় বয়স পর্যন্ত সেই অভ্যাস ছাড়াতে পারছেন না? একটু বড় হতেই তার সঙ্গে জুড়েছে দাঁত দিয়ে নখ কাটার অভ্যাস? ভাবছেন এতে শরীরে বাসা বাঁধছে রোগ, ইনফেকশন, অ্যালার্জির জীবাণু? চিন্তার কিছু নেই। কারণ, এক দল গবেষক জানাচ্ছেন, ব্যাপারটা ঠিক উল্টো। এই অভ্যাস থাকলে নাকি বেড়ে যায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা।

বিগত এক দশকে শিশুদের মধ্যে ইনফেকশন, অ্যালার্জিতে আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা বেড়েছে। এর কারণ হিসেবে চিকিত্সকরা জানাচ্ছেন, ছোট থেকেই প্রকৃতির সঙ্গে সংযোগ তৈরি হওয়া প্রয়োজন শিশুদের। কিন্তু বেশ কিছুটা সময় পর্যন্ত প্রকৃতির সঙ্গে সংযোগ না থাকায় হঠাত্ বাইরে বেরোলে অ্যালার্জি, ইনফেকশনে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ে। এই বিষয় ১৩ বছর বয়সী বেশ কিছু কিশোরের ওপর সমীক্ষা চালান গবেষকরা। দেখা গিয়েছে এদের মধ্যে ৪৫ শতাংশ শিশু বি়ড়াল, কুকুর, ধুলো, ঘোড়া বা ফাংগাস অ্যালার্জির প্রতি সংবেদনশীল। তবে এই শিশুদের মধ্যে যাদের আঙুল চোষার অভ্যাস রয়েছে তাদের অ্যালার্জিতে আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা ৩১ শতাংশ পর্যন্ত কম।

কানাডার ম্যাকমাস্টার ইউনিভার্সিটির এক অধ্যাপক ম্যালকম সিয়ারস জানান, প্রচলিত হাইজিন থিওরি বলে, যত অল্প বয়স থেকে ধুলো ময়লা, বাইরের জগতের সঙ্গে সংযোগ হবে, তত বেশি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে শিশুদের। এই সমীক্ষার ফল সেই থিওরির সঙ্গে মিলে যাচ্ছে। শিশুদের এই ধরনের অভ্যাস ভাল কি মন্দ বলা যায় না, তবে এই অভ্যাসের যে একটা ইতিবাচক দিক রয়েছে তা বলা যেতেই পারে।

মুখে আঙুল দেওয়ার ফলে জীবাণু সরাসরি তাদের শরীরে প্রবেশ করছে, যা বাড়িয়ে দিচ্ছে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। পেডিয়াট্রিকস জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে এই গবেষণার ফল।

আরও পড়ুনঃ   শীতের আগমনী বার্তা, সতর্কতা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

two × 3 =