হাঁপানি থেকে মুক্তির ঘরোয়া উপায়!

0
হাঁপানি থেকে মুক্তির ঘরোয়া উপায়

আরও পড়ুনঃ অ্যাজমা সম্পর্কে জানুন- হাঁপানি (অ্যাজমা) কি?

অ্যাজমা বা হাঁপানি হচ্ছে ফুসফুসের একটি রোগ যার কারনে শ্বাস প্রশ্বাসের সমস্যা হয়। এটি সাধারণত দুই ধরনের হতে পারে একটি খুব তীব্র হয় আর অন্যটি হচ্ছে দীর্ঘস্থায়ী।

এই রোগের সঠিক কারন যদিও জানা নেই তবে সালফাইট যুক্ত কিছু খাবার ও ঔষধ, অ্যালার্জি, বায়ু দূষণ, শ্বাস প্রশ্বাসের সংক্রমন, মানসিক চাপ, আবহাওয়ার পরিবর্তন ইত্যাদির কারনে হাঁপানির আক্রমণ হতে পারে। বিশেষ করে শীতকালে হাঁপানি রোগীদের রোগের প্রকোপ বৃদ্ধি পায় বেশি।

হাঁপানি রোগের প্রতিরোধে যদিও অনেক ঔষধ রয়েছে তবে কিছু ঘরোয়া উপায়ের মাধ্যমেও হাঁপানির আক্রমনে উপশম করা সম্ভব-

* সরিষার তেলঃ যখন হাঁপানির আক্রমণ হয় তখন কিছুটা সরিষার তেল কুসুম গরম করে বুকে এবং পিঠে মালিশ করলে শ্বাস প্রশ্বাসের পথ পরিষ্কার হয় এবং স্বাভাবিক ভাবে নিঃশ্বাস নিতে পারে।

* কফিঃ সাধারণ ক্যাফেইন থাকা কফি পান করলে তা হাঁপানির সমস্যায় বেশ উপকারে আসে। গরম কফি শ্বাস নালীকে পরিষ্কার করে এবং নিঃশ্বাস নেয়া সহজ করে। দিনে খুব বেশি হলে তিন কাপ কালো কফি খেতে পারেন। আর যদি কফি পছন্দ না হয় তাহলে গরম রঙ চা খেতে পারেন।

* মধুঃ মধু হচ্ছে হাঁপানির সবচেয়ে পুরনো নিরাময়ক উপাদান। মধুতে থাকা অ্যালকোহল এবং ইথারিয়েল তেল হাঁপানির উপসর্গ কমাতে সাহায্য করে।

* পেঁয়াজঃ পেঁয়াজের প্রদাহ বিরোধী গুনাগুন হাঁপানির শ্বাস কষ্ট দূর করতে সাহায্য করে। এছাড়া পেঁয়াজে থাকা সালফার ফুসফুসের প্রদাহ দূর করতেও সাহায্য করে। ভালো শ্বাস প্রশ্বাসের জন্য শুধু কাঁচা পেঁয়াজ খেতে পারেন।

* লেবুঃ হাঁপানির রোগীদের দেহে অনেক সময় ভিটামিন সি এর মাত্রা কম থাকে। লেবুতে থাকা প্রচুর ভিটামিন সি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হাঁপানির উপসর্গ কমাতে সাহায্য করে। তাই প্রতিদিন ভিটামিন সি যুক্ত খাবার খেতে পারেন।

ফাতেমা তুজ জোহুরা

আরও পড়ুনঃ   মধু সেবনের আশ্চর্য উপকারিতা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

seventeen − 15 =