১০০% ভার্জিন নারিকেল তেল ঘরেই তৈরি করার সবচাইতে সহজ রেসিপি!

0
ভার্জিন নারিকেল তেল

ভাবছেন, নারিকেল তেল তৈরি বুঝি অনেক কষ্ট? সত্যি বলতে কি, একদম নয়। বাড়িতে একটি ব্লেন্ডার আছে তো? ব্যস, তাতেই চলবে! খুব সামান্য চেষ্টাতেই নিজ হাতে তৈরি করে ফেলতে পারবেন একদম ১০০% ভাগ বিশুদ্ধ নারিকেল তেল।

কোন রোদে শুকানোর ঝামেলা নেই, শিল-পাটায় ঘষাঘষির ঝামেলা নেই, লাগবে না কোন সাহায্যকারীও। সত্যি বলতে কি, এত সহজ এই প্রক্রিয়া যে আপনি নিজেই অবাক হয়ে যাবেন। ও হ্যাঁ,  এই তেল নিয়মিত রোদে দিয়ে বা ফ্রিজে রেখে ব্যবহার করতে পারবেন অনেক দিন। ব্যবহার করতে পারবেন রান্নায়  এবং রূপচর্চায়। চুলের জন্য তো দারুণ হবে!

তবে আর দেরি কেন, চলুন তবে জানিয়ে দিই আমি যেভাবে ভার্জিন নারিকেল তেল তৈরি করি সেই সহজ রেসিপিটি।

যা লাগবে

নারিকেল

নারিকেল কোরানি

পাতলা কাপড়

ব্লেন্ডার

ভারী তলা বিশিষ্ট একটি প্যান বা কড়াই

 প্রণালি

-ভালো নারিকেল তেল পেতে নারিকেলটা সঠিক নির্বাচন করা খুবই জরুরী। যত আপনার নারিকেল পরিপক্ক বা ঝুনা হবে, তত বেশি ও ভালো মানের নারিকেল তেল পাবেন। তাই বলে অনেক দিনের পুরনো, পানি শুকিয়ে যাওয়া নারিকেল কিন্তু না আবার। কেবল একটু পরিপক্ক নারিকেল বেছে নিন, কচি নারকেলে ভালো তেল হবে না।

-নারিকেল ভালো করে কুরিয়ে নিন। কুরিয়ে নিতে না পারলে মালার ভেতর থেকে ছুরি দিয়ে তুলেও নিতে পারেন। সেক্ষেত্রে ছোট ছোট পিস করে কেটে নিন। নারিকেলের পানিটা ফেলবেন না, রেখে দিন।

-ব্লেন্ডারে কোরানো নারিকেল দিয়ে দিন। সাথে দিন নারিকেলের সম পরিমাণ গরম পানি। নারিকেলের পানিটাও সাথে যোগ করুন। ভালো করে ব্লেন্ড করে নিন। সব সময়ে ফ্রেশ কুরিয়েই দেবেন। কুড়িয়ে ফ্রিজে রেখে দিয়ে পরে তেল করতে চাইলে ভালো তেল হবে না।

-ব্লেন্ড করা মিক্সচারটি ভালো করে পাতলা কাপড়ে ছেঁকে নিন।  নারিকেলের দুধ তৈরি হবে। চাইলে ছিবড়ের মাঝে আরও একটু গরম পানি দিয়ে ব্লেন্ড করে সেটাও একইভাবে ছেঁকে নিন।

আরও পড়ুনঃ   আমড়ার চাটনি যেভাবে তৈরি করবেন?

– এখন এই নারিকেলের দুধ একটি বাটিতে নিন এবং অন্তত ১২ ঘণ্টার জন্য ফ্রিজে রেখে দিন।

– কিছু সময় পর দেখবেন যে নারিকেল দুধের পানি ও সলিড অংশটি আলাদা হয়ে গেছে। বাটির নিচে এক রকমের ঘোলা পানি জমেছে আর ওপরে মোমের মত একটা লেয়ার জমে গিয়েছে। এই লেয়ার আলাদা করে উঠিয়ে সরাসরি প্যানে বা কড়াইতে দিয়ে দিন।

-এবার মাঝারি আঁচে জ্বাল করতে থাকুন। মোমের মত সলিড উপাদান খুব দ্রুত গলে গিয়ে জ্বাল হতে শুরু করবে। আস্তে আস্তে জ্বাল হতে হতে দেখবেন যে দানা দানা এক রকমের জিনিস আলাদা হতে শুরু করেছে। প্রথমে এগুলো সাদা থাকবে, আস্তে আস্তে বাদামী বর্ণ ধারণ করবে। গাড় বাদামি বর্ণ ধারণ করলে বুঝবেন যে তেল তৈরি।

– তেল একটু ঠাণ্ডা করে ছেঁকে নিন। ব্যস, তৈরি আপনার নারিকেল তেল। বাদামী সলিড অংশগুলো ফেলে দেবেন না। এগুলো মুড়ি দিয়ে খেতে খুব মজা।

এই তেল ফ্রিজে রাখলে এক বছর পর্যন্ত ভালো থাকবে। নিয়মিত রোদে দিলে ৬ মাস ভালো থাকবে।

সৌন্দর্য ও স্বাস্থ্য রক্ষায় নারকেল তেলের ২০টি জাদুকরী ব্যবহার জেনে নিন

রেসিপি ক্রেডিট: অরগানিক ফুড শপ মিট মন্সটার

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

seventeen − 12 =